সিলেটWednesday , 14 September 2022
  1. আইন-আদালত
  2. আন্তর্জাতিক
  3. উপ সম্পাদকীয়
  4. খেলা
  5. ছবি কথা বলে
  6. জাতীয়
  7. ধর্ম
  8. প্রবাস
  9. বিচিত্র সংবাদ
  10. বিনোদন
  11. বিয়ানী বাজার সংবাদ
  12. ব্রেকিং নিউজ
  13. মতামত
  14. মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু
  15. রাজনীতি

অটোরিকশায় যাত্রীবেশে ছিনতাইকারী, আতঙ্ক

Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার:
সিলেট জেলার বিশ্বনাথে হঠাৎ করেই বেড়েছে যাত্রীবেশে ছিনতাইয়ের ঘটনা। একটি সংঘবদ্ধ দল সিএনজিচালিত অটোরিকশা ব্যবহার করে ঘটিয়ে চলেছে এসব ছিনতাইকাণ্ড।

ইতোমধ্যে এদের খপ্পড়ে পড়ে সর্বস্ব হারিয়েছেন উপজেলার একাধিক ব্যক্তি। প্রতিদিন বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যেই ঘটছে এসব ছিনতাইয়ের ঘটনা।

জানা যায়- উপজেলার বিশ্বনাথ, কালিগঞ্জ, রশিদপুর ও বিশ্বনাথ-জগন্নাথপুর বাইপাস সড়কে আছরের পর থেকে মাগরিব পর্যন্ত একদল সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারী চক্র অটোরিকশা নিয়ে ওঁৎ পেতে থাকে। তারা তাদের টার্গেটমতো বিত্তবান যাত্রীদের অটোরিকশা উঠায়। কিছুদূর যাওয়ার পর সুযোগ বুঝে যাত্রীকে অস্ত্র দেখিয়ে নগদ অর্থ, মোবাইল ফোন ও স্বর্ণালংকার ছিনিয়ে নেয় তারা। পরে ভুক্তভোগী যাত্রীকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে সুযোগ বুঝে নির্জন কোনো জায়গায় ফেলে দিয়ে পালিয়ে যায় ছিনতাইকারী চক্র।

এমনই ঘটনার শিকার হয়েছেন পৌরশহরের মজলিশ ভোগশাইল গ্রামের বাসিন্দা ব্যাংক কর্মকর্তা মফিজুর রহমান বাবুল। তিনি জানান- গত ১০ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় বাড়ি থেকে সিলেট যাবার উদ্দেশ্যে বের হন তিনি। বাড়ির সামনেই তালেরতল নামক স্থান থেকেই কালিগঞ্জের দিক থেকে আসা অটোরিকশায় উঠেন। পরে কিছু পথ এগিয়ে ফের গাড়ি উল্টো দিকে ঘুরিয়ে নেয় ছিনতাইকারীরা। এক পর্যায়ে কৌশলে তার মোবাইল ছিনিয়ে নিয়ে জোরপূর্বক পথিমথ্যেই তাকে নামিয়ে দেওয়া হয়।

এর বেশ কিছুদিন পূর্বে একই সময়ে একই জায়গায় ছিনতাইকারীদের কবলে পড়েন লেচু মিয়া স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক মোফাজ্জল হোসাইন। ঘটনার সময় ছিনতাইকারীদের একজন নেমে তাকে পেছনের সিটের মধ্যখানে বসায়। কিছুদূর এগিয়ে আল-এমদাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে এসে দুইপাশ থেকে দুইজন ছিনতাইকারী ধারালো অস্ত্র দেখিয়ে তাকে জিম্মি করে তার সঙ্গে থাকা মোবাইল ফোন ও মানিব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। পরে আবদুল হাসিমের মোড়ে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে তাকে ফেলে দিয়ে দিয়ে ছিনতাইকারীরা পালিয়ে যায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক ভুক্তভোগী জানান, নিজের স্থানীয় এলাকায়ও নিরাপদ নই আমরা। ঘর থেকে বের হলেই ছিনতাইকারীদের হাতে সব কিছু তুলে দিতে হচ্ছে। এটি আমাদের জন্যে আতঙ্ক ও লজ্জার বিষয়।

এ বিষয়ে কথা বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গাজী আতাউর রহমান বলেন, এসব বিষয়ে থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি। তবুও আমরা বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে খতিয়ে দেখবো এবং যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করবো।