সিলেটSunday , 9 October 2022
  1. আইন-আদালত
  2. আন্তর্জাতিক
  3. উপ সম্পাদকীয়
  4. খেলা
  5. ছবি কথা বলে
  6. জাতীয়
  7. ধর্ম
  8. প্রবাস
  9. বিচিত্র সংবাদ
  10. বিনোদন
  11. বিয়ানী বাজার সংবাদ
  12. ব্রেকিং নিউজ
  13. মতামত
  14. মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু
  15. রাজনীতি

রবিউল আউয়াল মাস যে বার্তা দিয়ে যায়

Link Copied!

ধর্ম ডেস্ক:
রবিউল আউয়াল অর্থ প্রথম বসন্ত। ঘটনা-দুর্ঘটনা স্মৃতি বিজড়িত এ মাসেই পৃথিবীতে আগমন করেছিলেন মানবতার মুক্তিরদূত নবীজি হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। এ মাসেই তাঁর ওপর অর্পিত রিসালাতের দায়িত্ব পালন শেষে আপন রবের আহ্বানে সাড়া দিয়ে পৃথিবী থেকে বিদায় নেন তিনি।

এ মাসটি মুসলিম উম্মাহর জন্য স্মৃতিবিজড়িত ও গুরুত্বপূর্ণ। তবে এ মাসকে ঘিরে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশের নামে ছড়িয়ে পড়েছে নানা বিভ্রান্তি। শরীয়তের পরিভাষায় যাকে বেদয়াত হিসেবে আখ্যায়িত করা হয়। এর মধ্যে অন্যতম হলো এ মাসের ১২ তারিখকে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সালাম-এর জন্মদিন হিসেবে পালন করা এবং সে উপলক্ষে ঢোল তবলা ও বিভিন্ন র‌্যালির আয়োজন করা।

জন্মদিন উদযাপন ইসলাম স্বীকৃত কোন বিষয় নয়। ইতিহাসবিদদের মতে ইসলাম-পূর্ব বাইবেল, রোমান ও গ্রীক সভ্যতায় জন্মদিন পালনের উপস্থিতি পাওয়া যায়। স্বভাবতই ইসলামী শরীয়তে নেই এমন কাজকে কখনোই সমর্থন করেন না আলেম সমাজ। ঢোল তবলাসহ বিভিন্ন বাদ্যের সাথে যখন বিষয়টিকে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সাল্লাম-এর পৃথিবীতে আগমনের দিন হিসেবে বিশেষভাবে উদযাপন করা হয় -এর কঠোর সমালোচনা করে থাকেন ইসলামী চিন্তাবিদগণ। একে গর্হিত কাজ বলেও অভিহিত করেন তারা। এ মাসকে নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জন্ম দিনের কারণে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ মনে করা আদৌ ঠিক নয়।

শুধু রবিউল আউয়ালে তার জীবনাদর্শ নিয়ে আলোচনা ও রাসুলের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশে নানা ধরনের কর্মসূচির আয়োজন নয়। দরকার নবী মুহাম্মদ (সা.)-এর আদর্শের যথাযথ অনুসরণ। তিনি যে আদর্শ প্রতিষ্ঠার জন্য আজীবন সংগ্রাম করেছেন, সেই আদর্শের আলোকে ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় জীবনকে সাজাতে পারলেই তাকে ভালোবাসার সুফল আমরা লাভ করতে পারবো।

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কোরআনে বলেছেন, ‘তোমাদের জন্য রাসুল (সা.)-এর জীবনে রয়েছে সর্বোত্তম আদর্শ, তোমাদের মধ্যে যারা আল্লাহ ও শেষ দিবসের আশা রাখে এবং আল্লাহকে অধিক স্মরণ করে।’- (সুরা আহজাব, আয়াত, ২১)

তাই নবীজির আগমনের মাসে তার আনীত একনিষ্ঠ দ্বীনের ওপর অটল থাকতে হবে। দ্বীন-ইসলামে নেই এমন কোনও বিষয় উদযাপন করা যাবে না। রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, ‘আমাদের শরীয়তে নেই এমন বিষয় যারা আবিস্কার করে তারা আমাদের দলভুক্ত নয়।’-(বুখারী: ২৬৯৭)

অতএব রবিউল আওয়াল মাসে শরীয়ত পরিপন্থী রীতি-নীতি ও কর্ম-কাণ্ড ও দ্বীনের নামে বিদআত থেকে বিরত থাকতে হবে। এসব থেকে বিরত থেকে যারা হজরত রাসুলুল্লাহ (সা.)-এর জীবনকে আদর্শরূপে যারা গ্রহণ করবে সুফল তারাই পাবেন।

এই সংবাদটি পড়া হয়েছে : 986 বার