সিলেটWednesday , 12 October 2022
  1. আইন-আদালত
  2. আন্তর্জাতিক
  3. উপ সম্পাদকীয়
  4. খেলা
  5. ছবি কথা বলে
  6. জাতীয়
  7. ধর্ম
  8. প্রবাস
  9. বিচিত্র সংবাদ
  10. বিনোদন
  11. বিয়ানী বাজার সংবাদ
  12. ব্রেকিং নিউজ
  13. মতামত
  14. মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু
  15. রাজনীতি

মাদক সেবন নিয়ে বিরোধ, চার বন্ধু মিলে খুন করে শান্তকে

Link Copied!

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি:
ময়মনসিংহের মুক্তাগাছায় দুর্গাপূজার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলার সময় সারোয়ার রহমান শান্ত (১৭) নামে এক কিশোরকে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় দুইজনকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। মঙ্গলবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ডিবির ওসি মো. সফিকুল ইসলাম।

এর আগে তারিকুল ইসলাম লিমন (১৭) ও মো. রবিউল হাসান শুভ (১৭) নামে দুই কিশোরকে গ্রেপ্তারের পর সন্ধ্যায় তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়। পরে তারা হত্যার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

ডিবি পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত ৫ অক্টোবর মুক্তাগাছা পাইকা শিমুল নতুন বাজার গরুরহাট হাসিল ঘর সংলগ্ন মাঠে দুর্গাপূজার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান চলাকালে শান্তকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করা হয়।

নিহত শান্ত পৌরসভার নবারুণ বিদ্যা নিকেতনের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী এবং মুক্তাগাছা পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মতিউর রহমানের ছোট ছেলে। শান্তকে ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় তার বাবা বাদী হয়ে ৭ অক্টোবর মুক্তাগাছা থানায় একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলাটি ডিবি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পেয়ে সোমবার মুক্তাগাছা থানা এলাকা থেকে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে তারিকুল ইসলাম লিমন ও রবিউল হাসান শুভকে আটক করে। লিমন উপজেলাটির কান্দিগাঁও গ্রামের বাবর আলীর ছেলে এবং শুভ সাইদুল ইসলাম রাজার ছেলে।

পরে জিজ্ঞাসাবাদে লিমন ও শুভ শান্তকে হত্যার বিষয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। তারা পুলিশকে জানায়, ঘটনার ১০ দিন আগে তাদের এক বন্ধুর সঙ্গে শান্তর বিরোধ হয়। মাদক সেবন নিয়ে বিরোধের জেরে লিমন, শুভ ও তাদের আরও দুই বন্ধু মিলে হত্যার পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনা অনুযায়ী তারা ধারালো ছোরা নিয়ে অপেক্ষায় থাকে। শান্তকে সেখানে ডেকে নিয়ে উপর্যুপরি ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় সবাই।

পরে দুই কিশোরকে মঙ্গলবার ময়মনসিংহ চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. তাজুল ইসলাম সোহাগ ও ইকবাল হোসেনের আদালতে উপস্থাপন করা হলে তারা হত্যার বর্ণনা দিয়ে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়।

ডিবির ওসি মো. সফিকুল ইসলাম বলেন, দুই কিশোর জবানবন্দি দেওয়ার পর তাদের কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানোর আদেশ দেন বিচারক। হত্যায় জড়িত অন্য দুই কিশোরকে গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।