সিলেটWednesday , 2 November 2022
  1. আইন-আদালত
  2. আন্তর্জাতিক
  3. উপ সম্পাদকীয়
  4. খেলা
  5. ছবি কথা বলে
  6. জাতীয়
  7. ধর্ম
  8. প্রবাস
  9. বিচিত্র সংবাদ
  10. বিনোদন
  11. বিয়ানী বাজার সংবাদ
  12. ব্রেকিং নিউজ
  13. মতামত
  14. মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধু
  15. রাজনীতি

বিশ্বনাথে ভোটকেন্দ্রে উত্তেজনা, পুলিশের লাঠিচার্জ, আটক ৪

Link Copied!

স্টাফ রিপোর্টার:
সিলেটের বিশ্বনাথ পৌরসভা নির্বাচনে একটি কেন্দ্রে দুই কাউন্সিলর প্রার্থীর সমর্থকদের ধাওয়া দিয়েছে পুলিশ। আজ বুধবার দুপুর ১২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ চারজনকে আটক করেছে। পুলিশের লাঠিচার্জে আহত হয়েছেন দুজন।

জানা যায়, বিশ্বনাথ পৌরসভার প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ। সকাল থেকে শান্তিপূর্ণভাবেই ভোটগ্রহণ চলছে। তবে দুপুরে জামেয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম মাদানিয়া মাদরাসা ভোটকেন্দ্রের সামনে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, স্ক্রু ড্রাইভার প্রতীক এবং পাঞ্জাবি প্রতীকের কয়েকজন সমর্থক ওই ভোটকেন্দ্রের বাইরে অবস্থান করছিলেন। ওই সময় এক কাউন্সিলর প্রার্থী ভোট দিতে কেন্দ্রে প্রবেশ করেন। তিনি আগেই ভোট দিয়েছেন বলে তখন অন্য প্রার্থীর সমর্থকরা অভিযোগ তুলেন। এ নিয়ে সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ভোটকেন্দ্রের বাইরে তখন বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। সমর্থকরা তখন বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

পরে পুলিশ অ্যাকশনে যায়। করা হয় লাঠিচার্জ। ধাওয়া দিয়ে সকল প্রার্থীর সমর্থকদের ভোটকেন্দ্রের বাইরে থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এ সময় আটক করা হয় চারজনকে।

এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমি বিস্তারিত জানি না। মানুষকে দৌড়াদৌড়ি করতে দেখেছি। ঘটনা জেনে জানাতে পারবো।’

তবে সিলেট জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ওই মাদরাসার ভোটকেন্দ্রের গেইটের বাইরে কিছু মানুষ, দুই দলের প্রার্থীরা একসাথে হয়েছিল। একজন প্রার্থী ভোট দিতে যখন ভেতরে আসলো, বাকিরা ভাবলো সে হয়তো আগেই ভোট দিয়ে চলে গেছে। কিন্তু তাকে যখন জিজ্ঞেস করা হলো, তখন সে বললো যে এই প্রথমবার ভোট দিতে আসছে। এ নিয়ে তাদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টির হয়েছিল।’

তিনি বলেন, ‘এ বিষয়টি নিয়ে অন্যান্য যেসব প্রার্থী আছেন, বাইরে তাদের মধ্যে উত্তেজনা ছিল। আমরা তাদের সাথে কথাবার্তা বলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করি। আমরা কয়েকজনকে আটক করেছি। তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। নির্দোষ হলে ছেড়ে দেওয়া হবে।’